14

December

সমুদ্রকে পুরোপুরি নিজের মত উপভোগ করতে সেন্টমার্টিনই বেস্ট

সেন্টমার্টিন আমার বরাবরই অনেক প্রিয় একটি জায়গা। খুব ভাল লাগে সেন্টমার্টিনে ঘুরতে। তাছাড়া সেন্টমার্টিনের কাছেই রয়েছে ছেঁড়াদীপ । সে যেন এক আরেক নীলপরি, চারপাশে নীল জলরাশি। উপরে নীল আকাশ। যেন সর্গের আরেক রূপ এই ছেঁড়াদীপ।

আমার কিছুটা এর বীচকে প্রাইভেট বীচ এর মত লাগে। কেননা পশ্চিম দিকের হোটেল, রির্সোট গুলাতে থাকলে একবারে সামনেই বীচ,ব্যালকনি থেকে লাফ দিলেই বীচ,যখন খুশি তখন যাওয়া যায়।

এখানে কক্সবাজারের মত নেই  মত এত মানুষ,নেই ঘোলা পানি। একবারে স্বচ্ছ পানি, নির্জন চারপাশ একেবারে নিজের মত।

ঢাকা টু টেকনাফ অনেক বাস যায়...শ্যামলী,হানিফ ৯০০ ভাড়া

আর টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনের জাহাজ ছাড়ে ১০:০০ টায়,টিকিট-৫০০ (আপ & ডাউন) এর নেয়া ই ভালো জাহাজের মধ্যে ভালো বে ক্রুজ,কেয়ারি সিন্দাবাদ কারন পুরোটা সময় সবাই ডেকে ই থাকে।টিকিট আগে ও কাটা যায়।

ব্যাগ সাবধানে রেখে ডেকে উঠবেন আর নাফ নদীর মুগ্ধতা দেখবেন প্রচুর সী-গাল উড়ে আসে চাইলে তাদের চিপস খাওয়াতে পারেন।সময় লাগে ১:৩০ এর আশেপাশে,জাহাজঘাটে অনেক ছোট ছোট ছেলেরা আছে ব্যাগ ক্যারি করাতে পারেন কিছু টাকার বিনিময়ে।

হোটেল বুকিং আগেই করে রাখবেন অবশ্যই।পশ্চিম দিকের হোটেল গুলা বেশি ভালো,একবারে সামনেই বীচ,আমরা উঠেছিলাম লাবিবা রির্সোটে,ভাড়া-৪০০০ ফর ৪ জন প্রতিরাত

চাইলে ২ ঘণ্টা ঘুরাঘুরি করে আপনি ৩ টার জাহাজে চলে যেতে পারেন।আমরা ছিলাম ৩ রাত।এখানকার সুবিধা হল নির্জনতা,মানুষ নেই তেমন,যত রাত খুশি থাকা যায়।আর হোটেল টাও সুন্দর,রাতে বি বি কিউ এর ব্যবস্থা।আশে পাশে খাওয়ার অনেক হোটেল আছে,দাম অবশ্যই আগে জিজ্ঞেস করে নিবেন।সম্ভব হলে মিনারেল ওয়াটার কিনে খাবেন,যেহেতু পানি একটু লবনাক্ত,আপনাকে স্যুট নাও করতে পারে।

রাতে বাজারে ঘুরতে পারেন,তবে কিছু কিনার ক্ষেত্রে দামাদামি করবেন। আর ফিস বি বি কিউ খেতে ভুলবেন,অনেক হোটেল আছে,মাছ দামাদামি করে চয়েস করে দিবেন,উনারা বি বি কিউ করে দিবে।আমরা ২টা রূপচাঁদা,১টা স্যালমন খেয়েছিলাম ১৫০০ করে।

সেন্টমার্টিন আসলেন,আর ছেড়াদীপ যাবেন না,তা তো হয় না। সকালে ট্রলার ছাড়ে,আপ ডাউন মে বি ২০০ টাকা।ট্রলারে উঠতে- নামতে সাবধান। যেতে ৪০মিনিট এর মত লাগে।

ছেঁড়াদীপ সে যেন এক আরেক নীলপরি,চারপাশে নীল জলরাশি,উপরে নীল আকাশ,নেই কোনো মানুষের বসতি প্রবাল বড় ছোট বিভিন্ন সাইজের যেন সর্গের আরেক রূপ এই ছেঁড়াদীপ।এখানকার ডাব খেতে ভুলবেন না।ছেঁড়াদীপ হেটে ও যাওয়া যায় ভাটার সময়ে,খুব সকালে,যেতে পারেন সাইকেলে ও।১ ঘণ্টা সময় ঘুরার,এরপর ট্রলারে ফিরে যেতে হবে।

পরদিন জাহাজে চড়ে টেকনাফ...তারপর টেকনাফ থেকে ঢাকা।

তাহলে এই শীতেই ঘুরে আসুন নারকেল জিঞ্জিরা আর সর্বদক্ষিণের দীপ ছেঁড়াদীপ।

Posted In:    

Related Blogs

Beautiful Bangladesh
  • Author: Jannatul Islam

A country that is a diverse and intriguing mix of culture, tradition and unforgettable beauty is an…

Shopping in Dhaka
  • Author: Jannatul Islam

Bashundhara City

রাতের ঝিলমিল হাতিরঝিলে
  • Author: Jannatul Islam

হাতিরঝিল বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার একটি…

লালবাগের ফুল বাগিচায়
  • Author: Jannatul Islam

লালবাগ কেল্লায় সবচাইতে আকর্ষণীয় এবং দর্শনীয়…